চট্টগ্রাম

আলীর গুহা বা আলীর সুড়ঙ্গ

আলীর গুহা

আলীর গুহা বা আলীর সুড়ঙ্গ (Alir Guha) নিয়ে রহস্যের শেষ নেই। রহস্যময় এই গুহা নিয়েও মজার মজার সব গল্প আর উপকথা প্রচলিত আছে। এই গুহা প্রাকৃতিকভাবেই সৃষ্টি হয়েছে। এলাকাবাসীর কাছে এর নাম আলীর সুরম। যারা পাহাড় ও জঙ্গলে ঘুরে বেড়াতে খুব ভালোবাসেন তাদের কাছে এই আলির গুহা একটি আদর্শ জায়গায়।

আলীর গুহা কোথায় অবস্থিত

আলীর গুহা বাংলাদেশের বান্দরবান জেলার আলীকদম উপজেলায় অবস্থিত। আলীকদম সদর থেকে তিন কিলোমিটার দূরে মাতামুহুরী-টোয়াইন খাল ঘেঁষে দুই পাহাড়ের চুড়ায় এর অবস্থান। সরকার একে পুরাকীর্তি হিসেবে চিহ্নিত করেছে।

যাওয়ার উপায়

আলীর গুহা যেতে হলে প্রথমেই আসতে হবে বান্দরবান জেলার আলীকদম উপজেলায়। এখন রাজধানী ঢাকা থেকে বিভিন্ন পরিবহন কোম্পানির বাস সরাসরি আলীকদম আসে। তাদের মধ্যে হানিফ, শ্যামলী উল্লেখযোগ্য। বাস ভাড়া ৮৫০ টাকা। রাতের বাসে রওনা দিলে সকালেই পৌঁছে যাবেন আলীকদম।

এছাড়া কক্সবাজারগামী যেকোন বাসে উঠে চকরিয়া নেমে সেখান থেকে যেতে পারেন আলীকদম। ঢাকা থেকে চকরিয়া বাস ভাড়া ৮৫০/১৪০০ টাকা। চকরিয়া থেকে আলীকদম যাওয়ার লোকাল বাস আছে। এইসব বাস প্রতিদিন সকাল ৭ টা থেকে সন্ধ্যা ৬.৩০ পর্যন্ত ৩০ মিনিট পর পর আলীকদমের উদ্দেশ্যে ছেড়ে যায়। ভাড়া ৬০ টাকা। সময় নিবে ১ ঘন্টা ৪০ মিনিট।

এছাড়া লোকাল জীপ বা চান্দের গাড়িতে চকরিয়া থেকে আলীকদম যেতে পারবেন। লোকাল ভাড়া নিবে ৬০/৬৫ টাকা। পুরা রিজার্ভ নিলে ১২০০/১৫০০ টাকা নিবে।

আলীকদম থেকে আলীর গুহা

প্রথমে আলীকদম থেকে ৩ কিলোমিটার দূরে মংচপ্রু পাড়ায় যেতে হবে। হেঁটে কিংবা অটোতে যেতে পারেন। মংচপ্রু পাড়ার পাশ দিয়েই বয়ে গেছে টোয়াইন খাল। এই খাল পার হয়ে কিছুক্ষণ পাহাড় ও ঝিরিপথে হাঁটলেই পেয়ে যাবেন আলীর গুহা। সময় লাগবে ২০/৩০ মিনিট।

এখানে মোট ৩ টি গুহা আছে। সবগুলো গুহা দেখা ও আসা যাওয়ায় মোট সময় লাগবে ৩ ঘণ্টার মতো।

কোথায় থাকবেন

আলী গুহায় একদিনে গিয়েই ঘুরে আসা যায়। রাতের বাসে ঢাকা থেকে রওনা দিয়ে, সারাদিন ঘুরে আবার রাতের বাসে ঢাকা ফিরে আসতে পারবেন। চট্টগ্রাম থেকেও খুব সকালে রওনা দিয়ে ঘুরে আবার ঐদিনেই ফিরে আসতে পারবেন।

এর পরেও যদি থাকার প্রয়োজন হয় তাহলে আলীকদমে উপজেলা রোডে দ্যা দামতুয়া ইন অথবা জেলা পরিষদের ডাক বাংলোতে থাকতে পারেন। অথবা পান বাজারে একটি বোর্ডিং আছে। সেখানেও থাকতে পারেন।

কোথায় খাবেন

আলীকদমে বেশ কিছু খাবারের হোটেল আছে। সেখানে খেতে পারেন। অথবা পান বাজারেও কিছু হোটেল আছে। সেখানেও খেতে পারেন।

গাইড

এর আগে আলীর গুহায় না গিয়ে থাকলে একজন গাইড নিয়ে যাবেন। গাইড ভাড়া হিসাবে ওদের যা দিবেন তাতেই ওরা খুশি।

ট্রাভেল টিপস এবং সতর্কতা

  • ভিতরে কোনো ময়লা আবর্জনা ফেলবেন না।
  • ভালো গ্রিপের জুতা ব্যবহার করবেন।
  • গুহার ভিতরের রাস্তা পাথুরে এবং পিচ্ছিল। তাই সাবধানে থাকবেন।
  • গুহার মুখে উঠার জন্য সাথে দড়ি রাখতে পারেন।
  • ভিতরে আলো নাই। তাই ভালো টর্চ লাইট সাথে রাখুন।
  • ভিতরে বাদুড় থাকে। ভয় পাবেন না। ওদের কিছু না বললে ওরা ক্ষতি করেনা।
  • প্রাকৃতিক পরিবেশের কোনো ক্ষতি হয় এমন কিছু করবেন না।

আশেপাশের দর্শনীয় স্থান

সময় থাকলে আশেপাশের আরো কিছু দর্শনীয় স্থান দেখে যেতে পারেন।

5 1 ভোট
রেটিং

লেখক

রাশেদুল আলম

আমি একজন সফটওয়্যার ইঞ্জিনিয়ার, ট্রাভেল ফটোগ্রাফার। তথ্য-প্রযুক্তি নিয়ে কাজ করলেও ঘুরে বেড়াতে ভীষণ ভালোবাসি। নিজের ভ্রমণ অভিজ্ঞতা এবং জ্ঞান কে এই ওয়েব সাইটে নিয়মিত শেয়ার করার চেষ্টা করি।

1 মন্তব্য
Inline Feedbacks
সব মন্তব্য দেখুন
''
1
0
আমরা আপনার অভিমত আশা করি, দয়াকরে মন্তব্য করুনx
()
x