বাংলাদেশ

চন্দ্রনাথ সহস্রধারা গুলিয়াখালী ট্যুর প্ল্যান

নাপিত্তাছড়া ট্রেইল
নাপিত্তাছড়া ট্রেইল
নাপিত্তাছড়া ট্রেইল
napittochara-trail-3
চন্দ্রনাথ পাহাড়
napittochara-trail-3
সহস্রধারা ঝর্ণা
napittochara-trail-3
গুলিয়াখালী সমুদ্র সৈকত
Shadow

চন্দ্রনাথ পাহাড়, সহস্রধারা ঝর্ণা, গুলিয়াখালী সী বিচ সীতাকুণ্ডের সব থেকে আকর্ষণীয় ট্যুরিস্ট স্পট। পর্যটকদের কাছে এই তিন স্পট খুবই জনপ্রিয়। মোটামোটি কাছাকাছি হওয়ায় প্ল্যান করে গেলে এক দিনেই এই তিন স্পট ঘুরে দেখায় যায়। আসুন দেখে নেই ১ দিনের চন্দ্রনাথ সহস্রধারা গুলিয়াখালী ট্যুর প্ল্যান (Chandranath sohosrodhara Guliakhali Tour Plan)।

কোথায় অবস্থিত

চন্দ্রনাথ পাহাড়, সহস্রধারা ঝর্ণা, গুলিয়াখালী সী বিচ বাংলাদেশের চট্টগ্রাম জেলার সীতাকুণ্ড উপজেলায় অবস্থিত।

কিভাবে যাবেন

চন্দ্রনাথ পাহাড়, সহস্রধারা ঝর্ণা, গুলিয়াখালী সী বিচ যেতে হলে প্রথমেই আসতে হবে চট্টগ্রামের সীতাকুন্ড। সীতাকুন্ড বাজার থেকে সিএনজি দিয়ে খুব সহজেই এইসব জায়গায় যাওয়া যায়।

চন্দ্রনাথ সহস্রধারা গুলিয়াখালী ট্যুর প্ল্যান

চন্দ্রনাথ পাহাড়, সহস্রধারা ঝর্ণা, গুলিয়াখালী সী বিচ ভ্রমণ করা একটু কষ্টকর আর সময় সাপেক্ষ ব্যাপার। তবে ভালো একটি প্ল্যান ফলো করলে দুই রাত একদিনে চন্দ্রনাথ পাহাড়, সহস্রধারা ঝর্ণা, গুলিয়াখালী সী বিচ ভ্রমণ করে আসতে পারবেন। আসুন দেখে নেই ২ রাত ১ দিনের চন্দ্রনাথ সহস্রধারা গুলিয়াখালী ট্যুর প্ল্যান।

চন্দ্রনাথ পাহাড়

দেশের যেকোন জায়গায় থেকে রাতে রওনা দিয়ে সকালের মধ্যে চলে আসুন সীতাকুণ্ড বাজার। সকাল ৭:০০ এর মধ্যে নাস্তা সেরে ট্রেকিং এর জন্য তৈরী হয়ে যাবেন। নাস্তা সেরে সিএনজি ভাড়া করে চলে যাবেন চন্দ্রনাথ পাহাড়। সিএনজি ভাড়া ১০০ টাকা। পাহাড়ের নিচেই সিএনজি নামিয়ে দিবে।

পাহাড়ে উঠার দুই পথ। হাতের বাম পাশের পথ দিয়ে উঠবেন। আর ডান পাশের পথ দিয়ে নামবেন। ডান পাশের পথে কম সময় লাগলেও বেশি কষ্টকর। বাম পাশের পথ একটু লম্বা হলেও বেশ সহজ আর ভালো।

পাহাড়ে উঠতে ৫০ থেকে ৬০ মিনিটের মতো সময় লাগবে। আর নামতে ২৫/৩০ মিনিট সময় লাগবে। উঠার আগে নিচ থেকে বাঁশ/লাঠি, পানি, হালকা খাবার কিনে নিতে পারেন। লাঠি ভাড়ায় পাওয়া যায়। ৩০ টাকা জমা নিবে, ফেরত দিলে ২০ টাকা রিটার্ন দিবে। লাঠি নেয়া অতটা জরুরী না। প্রত্যেকে ১ লিটার পানি নিয়ে নিবেন। কেননা উপরে পানির দাম বেশি।

চন্দ্রনাথ পাহাড় থেকে নেমে দুপুর ১২ টার মধ্যে চলে আসুন সীতাকুন্ড বাজার।

সহস্রধারা ২ ঝর্ণা

সীতাকুন্ড বাজার থেকে সিএনজি ভাড়া করে চলে যাবেন সহস্রধারা ২ ঝর্ণা। সিএনজি ভাড়া ১০০ টাকা। সিএনজি সহস্রধারা সেচ প্রকল্পের কাছে নামিয়ে দিবে। সিএনজি থেকে নেমে বাকি পথ হেটে যেতে হবে। পায়ে হেটে সহস্রধারা সেচ প্রকল্পের ভিতরে সহস্রধারা লেক পর্যন্ত আসতে ২০/২৫ মিনিট সময় লাগবে।

লেকে এসে জনপ্রতি ৬০ টাকা ভাড়া দিয়ে, ইঞ্জিন চালিত নৌকায় লেক পার হয়ে পৌঁছে যাবেন সহস্রধারা ঝর্ণা। একই নৌকা আবার আপনাকে ফিরিয়ে আনবে। আসা-যাওয়ার ভাড়া ৬০ টাকা। ফেরার পথে সহস্রধারা সেচ প্রকল্পের সুইচ গেটে এসে ছবি তুলতে পারেন। লেক অনেক গভীর। তাই সাঁতার না জানলে লেকের পানিতে নামা উচিৎ নয়।

সহস্রধারা ২ ঝর্ণা থেকে দুপুর ৩ টার মধ্যে চলে আসুন সীতাকুন্ড বাজার। এসে দুপুরের খাবার খেয়ে নিন।

গুলিয়াখালী সী বিচ

সীতাকুন্ড বাজার থেকে সিএনজি ভাড়া করে চলে যাবেন গুলিয়াখালী সী বিচ। রিজার্ভ ভাড়া নিবে ১৫০/২০০ টাকা। গুলিয়াখালীতে যাওয়ার পরেই দেখবেন কাঁদা আর কাঁদা। প্রায় ১৫/২০ মিনিট কাঁদার সাথে যুদ্ধ করে পৌঁছে যাবেন সবুজ সুন্দর এক বীচে। তখন সব কষ্ট চলে যাবে।

সূর্যাস্ত পর্যন্ত বীচে থেকে আবার ফেরত আসুন সীতাকুন্ড বাজারে। সীতাকুন্ড বাজারে ঢাকায় আসার প্রায় সব ধরণের বাসের কাউন্টার আছে। টিকেট কেটে ফিরে আসুন আপনার বাসায়।

চন্দ্রনাথ সহস্রধারা গুলিয়াখালী ভ্রমণের সতর্কতা এবং টিপস

  • অতিরিক্ত খাবার, খাবারের প্যাকেট, চিপসের প্যাকেট, সিগারেটের ফিল্টার, পানির বোতলসহ অন্যান্য আবর্জনা যেখানে সেখানে ফেলবেন না।
  • কাঁধের ব্যাগ নিবেন। আর ব্যাগের ওজন যাতে কম থাকে সেদিকে খেয়াল রাখবেন।
  • ভালো মানের গ্রিপের জুতা পরে যাবেন।
  • জোকের প্রাদুর্ভাব আছে। তাই ঘাস এড়িয়ে চলুন।
  • জোঁক ছাড়ানোর জন্য সাথে লবন বা গুল রাখুন।

5 1 ভোট
রেটিং

লেখক

রাশেদুল আলম

আমি একজন সফটওয়্যার ইঞ্জিনিয়ার, ট্রাভেল ফটোগ্রাফার। তথ্য-প্রযুক্তি নিয়ে কাজ করলেও ঘুরে বেড়াতে ভীষণ ভালোবাসি। নিজের ভ্রমণ অভিজ্ঞতা এবং জ্ঞান কে এই ওয়েব সাইটে নিয়মিত শেয়ার করার চেষ্টা করি।

1 মন্তব্য
Inline Feedbacks
সব মন্তব্য দেখুন
''
1
0
আমরা আপনার অভিমত আশা করি, দয়াকরে মন্তব্য করুনx
()
x