সিলেট

হাকালুকি হাওর

হাকালুকি হাওর

হাকালুকি হাওর (Hakaluki Haor) বাংলাদেশের সব থেকে বড় হাওর। প্রকৃতির রঙ, রূপ আর বৈচিত্র্যের এক অপূর্ব মিলন মেলা এই হাওর। এই হাওর বছরের বিভিন্ন সময় ভিন্ন ভিন্ন রূপ ধারণ করে। বর্ষায় এর বিস্তৃত জলরাশি দেখে মনে হয়, এ যেন এক মহাসাগর। যেদিকে চোখ যায় শুধু রুপালি জলের হাতছানি। মাঝে মাঝে চোখে পড়ে জলে দণ্ডায়মান হিজল, তমালসহ নানা জলজ বৃক্ষ।

হাকালুকি হাওর কোথায় অবস্থিত

হাকালুকি হাওর সিলেট জেলার ফেঞ্চুগঞ্জ, বিয়ানীবাজার, গোলাপগঞ্জ উপজেলা এবং মৌলভীবাজার জেলার বড়লেখা, কুলাউড়া ও জুড়ি উপজেলা নিয়ে গঠিত। এর আয়তন প্রায় ১৮,১১৫ হেক্টর। এই হাওর এর ২০ % সিলেট জেলায় আর ৮০ % মৌলভীবাজার জেলায়। সিলেট জেলার ৩৮ টি আর মৌলভীবাজার জেলার ২০০ বিল নিয়ে এই হওয়ার গঠিত। এটি এশিয়া মহাদেশের বৃহত্তম মিঠাপানির জলাভূমি।

হাকালুকি হাওর কখন যাবেন

নভেম্বরে থেকে ফেব্রুয়ারী মাস এই হাওর ভ্রমণের সব থেকে ভালো সময়। এ সময় এখানে প্রচুর অতিথি পাখি আসে। তবে বর্ষাকালেও যেতে পারেন।

হাকালুকি হাওর কিভাবে যাবেন

হাকালুকি হাওর দেখতে হলে প্রথমেই আসতে হবে মৌলভীবাজারের কুলাউড়া বা বড়লেখা উপজেলায়। ঢাকার সায়েদাবাদ, যাত্রাবাড়ী, মহাখালী থেকে বাসে করে আসা যায় কুলাউড়া বা বড়লেখা। কুলাউড়া, জুড়ি অথবা বড়লেখা থেকে অটোতে করে চলে যাবেন হাকালুকি। ভাড়া নিবে ১৫০/২০০ টাকা।

এছাড়া কমলাপুর কিংবা বিমানবন্দর স্টেশন থেকে সিলেটগামী ট্রেনে চড়ে চলে আসতে পারেন কুলাউড়া রেল স্টেশন। পরে সেখান থেকে অটোতে হাকালুকি। হাওরে কয়েক ঘণ্টার জন্য নৌকা ভাড়া, ছোট নৌকা ৮০০ টাকা এবং বড় নৌকা ১২০০ টাকা। তবে অবশ্যই দরদাম করে নিবেন।

কোথায় থাকবেন

হাওরে বিল ইজারাদারদের অনুমতি নিয়ে এদের কুটিরে থাকা যায়। এছাড়া তাবু ফেলে ক্যাম্পিং করতে পারেন। তা নাহলে বড়লেখা উপজেলা শহরে এসে থাকতে পারেন।

কি খাবেন

নৌকা ভাড়া করার সময় মাঝিদের বলে নিলে তারাই রান্না করে খাওয়াবে। তবে এর জন্য প্রয়োজনীয় বাজার সদাই আগেই করে নিতে হবে। এছাড়া নৌকায় উঠার আগে চা, বিস্কিট, ব্রেড ইত্যাদি হালকা খাবার সাথে নিয়ে নিতে পারেন। এখানে কম টাকায় গরু, মহিষের দুধ পাওয়া যায়।

আশেপাশের দর্শনীয় স্থান

হাকালুকি হাওর এর আশেপাশের আছে আরো কিছু দর্শনীয় স্থান। হাতে সময় থাকলে দেখে যেতে পারেন। তাদের মধ্যে উল্লেখযোগ্য হলো:

5 1 ভোট
রেটিং

লেখক

রাশেদুল আলম

আমি একজন সফটওয়্যার ইঞ্জিনিয়ার, ট্রাভেল ফটোগ্রাফার। তথ্য-প্রযুক্তি নিয়ে কাজ করলেও ঘুরে বেড়াতে ভীষণ ভালোবাসি। নিজের ভ্রমণ অভিজ্ঞতা এবং জ্ঞান কে এই ওয়েব সাইটে নিয়মিত শেয়ার করার চেষ্টা করি।

0 মন্তব্য
Inline Feedbacks
সব মন্তব্য দেখুন
0
আমরা আপনার অভিমত আশা করি, দয়াকরে মন্তব্য করুনx
()
x