সিলেট

মাধবকুণ্ড জলপ্রপাত

মাধবকুণ্ড জলপ্রপাত

মাধবকুণ্ড জলপ্রপাত বাংলাদেশের সব থেকে উঁচু জলপ্রপাত। দেশে আরো কিছু জলপ্রপাত আবিষ্কারের আগে পর্যন্ত পর্যটকদের কাছে এটিই ছিল একমাত্র প্রাকৃতিক জলপ্রপাত। প্রায় ১৬২ উঁচু থেকে অবিরাম জলধারা নিচে পড়ছে। আর জলকণা পাথরে ধাক্কা লেগে বাতাসে উড়ে তৈরী করছে কুয়াশার।

মাধবকুণ্ড জলপ্রপাত কোথায় অবস্থিত

মাধবকুণ্ড জলপ্রপাত বাংলাদেশের মৌলভীবাজার জেলার বড়লেখা উপজেলার অবস্থিত।

মাধবকুণ্ড জলপ্রপাত কখন যাবেন

মাধবকুণ্ড জলপ্রপাতে সারা বছরই পানি প্রবাহমান থাকে। তবে বর্ষায় এই পানির প্রবাহ অনেক বেড়ে যায়। তাই বর্ষাকালে গেলেই সব থেকে ভালো হয়। তবে বর্ষাকালে কিছু বিপদ থাকে। তাই সব থেকে ভালো হয় মাঝ বর্ষায় না গিয়ে বর্ষার আগে আগে বা পর পর যাওয়া। তখন আশেপাশের পরিবেশ মিলিয়ে একটু বেশি সুন্দর মনে হয় এই জলপ্রপাত কে।

কিভাবে যাবেন

মাধবকুণ্ড জলপ্রপাত যেতে হলে প্রথমেই আসতে হবে মৌলভীবাজার জেলায়। ঢাকা থেকে বাস এবং ট্রেনে আসা যায় মৌলভীবাজার। সায়দাবাদ, ফকিরাপুল থেকে হানিফ, শ্যামলী, এনা ইত্যাদি বিভিন্ন পরিবহন কোম্পানীর এসি/নন এসি বাস আসে মৌলভীবাজার। ভাড়া ৩০০ থেকে ৯০০ টাকা। সময় নিবে ৪ ঘন্টা। এইসব বাসে এসে কুলাউড়া স্টেশনে নামতে হবে।

এছাড়া সিলেটগামী ট্রেনে আসা যায় কুলাউড়া স্টেশন। সময় নিবে ৫ থেকে সাড়ে ৫ ঘন্টা। ভাড়া ২২০ থেকে ১০০০ থাকা।

কুলাউড়া থেকে মাধবকুন্ডের দুরুত্ব প্রায় ২৫ কিলোমিটার। এখান থেকে সিএনজি ভাড়া নিয়ে যাওয়া যায় মাধবকুণ্ড জলপ্রপাত। ভাড়া ২৫০ থেকে ৩০০ থাকা।

কোথায় থাকবেন

মাধবকুণ্ড এলাকায় জেলাপরিষদের ২ টি বাংলো এবং ২ টি আবাসিক হোটেল আছে। সেখানে থাকতে পারেন। এছাড়া মৌলভীবাজার বা শ্রীমঙ্গল যেয়ে থাকতে পারেন।

কোথায় খাবেন

জলপ্রপাত বার ঝর্ণা এলাকায় খাবারের জন্য ভালো মানের তেমন কোনো রেস্টুরেন্ট বা হোটেল নাই। তাই শ্রীমঙ্গল বা কুলাউড়া ফিরে খেতে পারেন।

সতর্কতা এবং টিপস

  • অতিরিক্ত খাবার, খাবারের প্যাকেট, চিপসের প্যাকেট, সিগারেটের ফিল্টার, পানির বোতলসহ অন্যান্য আবর্জনা যেখানে সেখানে ফেলবেন না।
  • ভালো মানের গ্রিপের জুতা পরে যাবেন।
  • ঝর্ণায় যাওয়ার রাস্তা বেশ দুর্গম এবং পিচ্ছিল। তাই সতর্ক হয়ে পথ চলবেন।
  • পানিতে জোঁক থাকতে পারে। তাই জোঁক ছাড়ানোর জন্য সাথে লবন বা গুল রাখুন।
  • সাথে পাওয়ার ব্যাংক রাখুন।
4.7 3 ভোট
রেটিং

লেখক

রাশেদুল আলম

আমি একজন সফটওয়্যার ইঞ্জিনিয়ার, ট্রাভেল ফটোগ্রাফার। তথ্য-প্রযুক্তি নিয়ে কাজ করলেও ঘুরে বেড়াতে ভীষণ ভালোবাসি। নিজের ভ্রমণ অভিজ্ঞতা এবং জ্ঞান কে এই ওয়েব সাইটে নিয়মিত শেয়ার করার চেষ্টা করি।

1 মন্তব্য
Inline Feedbacks
সব মন্তব্য দেখুন
''
1
0
আমরা আপনার অভিমত আশা করি, দয়াকরে মন্তব্য করুনx
()
x