চট্টগ্রাম বিভাগের দর্শনীয় স্থান

রাঙ্গামাটি ঝুলন্ত সেতু

Loading

নাপিত্তাছড়া ট্রেইল
নাপিত্তাছড়া ট্রেইল
নাপিত্তাছড়া ট্রেইল
napittochara-trail-3
ঝুলন্ত ব্রিজ
napittochara-trail-3
ঝুলন্ত ব্রিজ
napittochara-trail-3
ঝুলন্ত ব্রিজ
Shadow

ঝুলন্ত সেতু (Jhulonto Bridge) রাঙ্গামাটি শহরের প্রধান আকর্ষণ। কাপ্তাই লেকের উপর দুইটি পাহাড়ের মধ্যে বানানো ৩৩৫ ফুট লম্বা এই সেতুকে বলা হয় সিম্বল অফ রাঙ্গামাটি। ১৯৮৬ সালে নির্মিত এই সেতু রাঙ্গামাটি জেলার ল্যান্ডমার্ক আইকন। কালারফুল এই সেতুর উপরে দাঁড়িয়ে কাপ্তাই লেকের মনোরম দৃশ্য দেখা যায়। সেতুর একপাশে শুশুদের বিনোদনের জন্য দোলনা, স্লিপার আছে। অন্য পাশে আছে আদিবাসিদের বাজার।

ঝুলন্ত সেতু কোথায় অবস্থিত

ঝুলন্ত সেতু রাঙ্গামাটি জেলার শহরে অবস্থিত। কাপ্তাই লেকের পারে হলিডে কমপ্লেক্স এলাকায় এর অবস্থান।

ঝুলন্ত সেতু কিভাবে যাবেন

রাঙ্গামাটি ঝুলন্ত সেতু দেখতে হলে আপনাকে আসতে হবে রাঙ্গামাটি জেলা শহরে। প্রতিদিন ঢাকার ফকিরাপুল, আরামবাগ, উত্তরা, পান্থপথ, সায়দাবাদ থেকে বিভিন্ন বাস কোম্পানির এসি/নন এসি বাস রাঙ্গামাটি শহরে আসে। এসি বাসের ভাড়া ১৩০০ থেকে ১৮০০ টাকা। আর নন এসি বাসের ভাড়া ৮৫০ থেকে ৯০০ টাকা। সন্ধ্যা ৭ টা থেকে রাত ১২ টার মধ্যে বেশির ভাগ বাস ছাড়ে। তবে দিনের বেলাতেও অল্প কিছু বাস চলাচল করে। সময় বাঁচাতে রাতে আসা ভালো।

চট্টগ্রাম থেকেও রাঙ্গামাটি আসতে পারেন। শহরের অক্সিজেন মোড় থেকে বিভিন্ন ধরণের বাস পাওয়া যায়। পাহাড়িকা, এস. আলম, ইউনিক, হানিফ ও বিআরটিসি তাদের মধ্যে অন্যতম। এইসব বাস গুলো সাধারণত সকাল ৭ টা থেকে রাত ৮ টা পর্যন্ত চলাচল করে। লোকাল বাসের ভাড়া ৮৫ টাকা। সময় নিবে ৩ থেকে সাড়ে ৩ ঘন্টা। ডাইরেক্ট বাসের ভাড়া ১০০ থেকে ১৫০ টাকা। সময় নিবে আড়াই থেকে ৩ ঘন্টা।

রাঙ্গামাটি শহরে নেমে সিএনজি নিয়ে চলে আসবেন ঝুলন্ত সেতু। শহরের তবলছড়ি এলাকা থেকে সিএনজি ভাড়া ৫০/৬০ টাকা। বনরূপা এলাকা থেকে সিএনজি ভাড়া ১২০ টাকা।

কোথায় খাবেন

রাঙ্গামাটি শহরে অনেক গুলো রেস্টুরেন্ট আছে। আপনার ইচ্ছেমতো যে কোনো একটায় খাবার খেয়ে নিতে পারেন। শহরের বনরূপা এলাকায় অনেক গুলো ভালো মানের রেস্টুরেন্ট আছে। তাদের মধ্যে ফরেস্ট রোডে গ্রিন ভ্যালি রেঁস্তোরা অন্যতম। এছাড়া ঝুলন্ত সেতুর কাছে আদিবাসীদের খাবার, ফলমূল পাওয়া যায়। এসব ফল খুব টেস্টি এবং দামে সস্তা। তাই অবশ্যই খেয়ে দেখবেন।

খরচ

ঝুলন্ত সেতুতে প্রবেশ করার জন্য জনপ্রতি ২০ টাকার টিকেট কাটা লাগে। বাংলাদেশ পর্যটন কর্পোরেশন এই টাকা নিয়ে থাকে। এছাড়া ব্রিজের নিচে ইঞ্জিন চালিত বোট পাওয়া যায়। প্রতি ঘন্টার ভাড়া ২০০/৩০০ টাকা। এইসব বোট ভাড়া নিয়ে কাপ্তাই লেকে ঘুরে বেড়াতে পারেন। তবে বোট ভাড়া করার আগে কোন কোন জায়গায় যাবেন, কতক্ষন থাকবেন ইত্যাদি ভালো মতো আলোচনা করে নিবেন। আর অবশ্যই দরদাম করে নিবেন।

সতকর্তা

  • আদিবাসীদের সাথে ভালো আচরণ করুন।
  • খরচ কমাতে ছুটির দিন এড়িয়ে চলুন।
  • বোট, সিএনজি দরদাম করে ভাড়া করবেন।
  • ব্রিজে লাফালাফি করা নিষেদ। এটি মেনে চলুন।
5 1 ভোট
রেটিং

লেখক

আমি পেশায় একজন সফটওয়্যার ইঞ্জিনিয়ার। তথ্য-প্রযুক্তি নিয়ে কাজ করলেও ঘুরে বেড়াতে আমি ভীষণ ভালোবাসি। আমি আমার ভ্রমণ অভিজ্ঞতা কে এই ওয়েব সাইটে নিয়মিত শেয়ার করি।

Subscribe
Notify of
1 মন্তব্য
Inline Feedbacks
সব মন্তব্য দেখুন

''

1
0
আমরা আপনার অভিমত আশা করি, দয়াকরে মন্তব্য করুনx